ব্যক্তিগত কথাকাব্য

    
                         ১।
শহরের সব প্রবেশ মুখের গিঁট খুলে একবার
আমি অরণ্যে গিয়েছিলাম। গাছের
শরীরে লিখে এসেছিলাম নগর আর নাগরিক
জীবনের আত্নকথা। তাবুর
দরজা খুলে নির্ভয়ে ঘুমানোর গল্প।আজ অনেক বছর পর
একটা ইমেইল পেলাম সেখানে লেখা –
আপনি মিথ্যুক !


                            ২। 

আমি জানি আমার দশ হাজার একশ পঁচিশ দিনের
জমানো পূর্নিমাকে তুমি নিমিষেই
অমবস্যা করে দিতে পার। সে ক্ষমতা তোমার
আছে। তারপরেও আমি তোমার দিকে হাঁটছি,
তোমার সেই রেখে যাওয়া পথে। এটা দুঃসাহস
নয়, এটা বুকের পাঁজরের ভিতর
লুকিয়ে থাকা উম্মাদনা। যেটাকে পৃথিবীর মানুষ
নাম দিয়েছে ‘প্রেম’।


                             ৩।
 
আমি একটা শব্দ খুঁজি যে শব্দ দিয়ে একটা গল্প
হবে। আমি একটা মানুষ খুঁজি যে মানুষ আমার
গল্প শুনবে। আমি যখন শব্দ খুজে পাই তখন
মানুষ পাইনা,আর যখন মানুষ খুঁজে পাই তখন
শব্দ ভুলে যাই। তাই শব্দ আর মানুষের
মাঝখানে আমি শুধু ঘুরাঘুরি করি।


                            ৪। 

বালিকা,
তোমার রেখে যাওয়া ফুল
আমি আজও পাহারা দেই,
আজও সে ফুলে সাজানো হয়
অতিথি পাখি দম্পতির কুয়াশা রাতের শয্যা।

                         ৫।
ইদানিং পথে অনেক কিছু কূড়িয়ে পাই
যেমন সেদিন হিটলারের একটা ডায়েরি পেলাম,
আচানক বিষয়-
সে ডায়েরিতে মানুষের কথা লেখা আছে
সাথে প্রেম ভালবাসার কথাও।

                   
 

0 comments:

Post a Comment