মুভি রিভিউঃ The Secret in Their Eyes (2009)

সিনেমাটি আইএমডিবি এর “সেরা ২৫০” সিনেমার মধ্যে ১৫০ নাম্বারে অবস্থান করছে। সিনেমাটি আর্জেন্টিয়ান ইউনিক মাস্টারপিস কেননা আর্জেন্টিনার প্রথম সিনেমা হিসেবে আইএমডিবির “Top 250” মুভির লিস্টে প্রবেশ করে। ফরেন সিনেমা গুলোর মান কেমন হলে আইএমডিবির এর টপ লিস্টে যোগ হয় মোটামুটি এই ধারনা আমরা সবাই রাখি।

 আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ ইনফরমেশন হচ্ছে,এই সিনেমাটি ২০০৯ সালের অস্কারে সেরা বিদেশী চলচ্চিত্র হিসেবে জয়লাভ করে। সিনেমাটি সম্পর্কে আমার ব্যাক্তিগত অভিমত? অ্যা মুভি টু রিমেমবার……

দ্যা সিক্রেট ইন দেয়ার আই’স (২০০৯)
অরিজিনাল টাইটেলঃ El secreto de sus ojos
জনরাঃ ড্রামা । মিস্ট্রি । থ্রিলার
আইএমডিবি রেটিংঃ ৮.২/১০
রটেন টম্যাটোসঃ ৯১% ফ্রেশ
কাস্টিংঃ রিকার্দো দারিন, সোলদাদ ভিলামিন,পাবোলো রগো,গুলারমো ফ্রান্সেলা প্রমুখ।
ডিরেক্টরঃ হোয়ান জসে কাম্পান্যালা
দেশঃ আর্জেন্টিনা
ভাষাঃ স্প্যানিশ

সিনেমার প্লট সম্পর্কে কিছু বলি, অবসরপ্রাপ্ত ফেডারেল জাস্টিস এজেন্ট “বেঞ্জামিন এস্পসিতো” একটি উপন্যাস লেখার কথা ভাবছেন কিন্তু মনের মত গল্প পাচ্ছেন না, পেলেও কয়েক পৃষ্ঠা লেখে আর কন্টিনিউ করতে পারছেন না। তখন তার ২৫বছর পূর্বের কর্মরত অবস্থায় একটি অমীমাংসিত কেইস এর কথা মনে পরলো যেখানে একজন মহিলাকে ধর্ষণ করে খুন করা হয়। এই গল্প নিয়ে উপন্যাস লেখার আইডিয়া সে অফিসার’স অফ জাজ “ইরেনে মেনেন্দে হ্যাথিন্স ” কে জানান (ইরেনে হ্যাথিন্স বেঞ্জামিনের পুর্বের সিনিয়র কলিগ,লাভ ইন্টারেস্ট ও এই কেইসে একই সাথে কাজ করেছেন)। তারপর ধারাবাহিক ভাবে ফ্ল্যাশব্যাকে ২৫বছর আগের ঘটনা শুরু হয়।

সিনেমাটিতে এক ভিন্ন স্বাদ পাওয়া যাবে। স্টোরি, এক্টিং, ক্যামেরা ওয়ার্ক,ডিরেকশন,সাউন্ড মিলে একটি অসাধারন সিনেমা পরিবেশন করা হয়েছে। তাছাড়া সিনেমাটি ভাল লাগার অন্যান্য কারন হিসেবে বলা যায় ড্রামা, থ্রিল আর মিস্টিরিয়াস ইভেন্ট এর সাথে রোমান্সের মিশ্রণ। ফ্ল্যাশব্যাকের গল্প শুরুর পর থেকেই পুরো সিনেমা জোরে একটা রহস্যময় পরিবেশ বিরাজমান ছিল। যদিও সিনেমার মাঝখানে একটু স্লো মনে হতে পারে বাট জনরায় ড্রামা উল্লেখ্ আছে যেহেতু এমনটা হওয়াও স্বাভাবিক। বাট বিলিভ মি, ক্লাইম্যাক্স উইল ব্লো ইয়ুর মাইন্ড B-)



অভিনেতা রিকার্দো দারিন এর সাথে পরিচয় ক্রাইম থ্রিলার “Nine Queens (2000)” এর মাধ্যমে ও মাস্টারপিস Wild Tales (2014) তেও তার পারফর্মেন্স অনেক ভালো লেগেছে। রিকার্দো দারিন কে আর্জেন্টিনার শক্তিমান তারকাদের শীর্ষে রাখা হয়। সুতরাং সে তার স্বভাবসুলভ অভিনয় করেছেন। ইরেনে হ্যাথিন্স চরিত্রে সলদাদ ভিলামিন কে বেশ সাবলীল ও গ্লেমারেস এবং পাবোলো সান্দাবাল চরিত্রে গুলারমো ফ্রান্সেলা কে অনেক ভালো লেগেছে। অন্যান্য পার্শচরিত্রেও সবাই ঠিকঠাক ছিলেন।
আর পরিচালক “হোয়ান জসে কাম্পান্যালা” এর এই সিনেমাটি সহ ২০০২ সালে “Son of the Bride” বেস্ট ফরেন ফিল্ম ক্যাটাগরিতে নমিনেশন পেয়েছিলেন। নিঃসন্দেহে তিনি একজন গুণী পরিচালক। এই সিনেমার পরিচালনার পাশাপাশি কো-রাইটারও ছিলেন।

আর সিনেমায় অসাধারন কিছু লাইন আছে,তার মধ্যে আমার প্রিয়ঃ
◆A guy can change anything but he can’t change his passion
◆If you keep going over the past, you’re going to end up with a thousand pasts and no future
◆ Choose carefully. Memories are all we end up with. At least pick the nice ones.
◆How do you live a life full of nothing?

0 comments:

Post a Comment