কেউ দাঁড়ালো আমার চিলেকোঠায়

কোন এক প্রহর শেষের বেলায়,
কেউ দাড়াল শ্যাওলা পড়া আমার চিলেকোঠায়।

চিলেকোঠাটা অনেক বুড়ো
রঙ ধ্বসে সব গুড়ো গুড়ো
ঘুনেধরা এক চেয়ার থাকে বছর বছর ধরে,
সেই চেয়ারে বসল সে কেউ
আকাশজুড়ে মেঘমেঘে ঢেউ
ভোর না হতেই এক অচিন পাখি ওড়ে।

সেই পাখিটার রূপার ডানা
দেখতে আছে সবার মানা
তবু সে খুব দেখতে থাকে তাকে,
মেঘের ফাকে তারার উঁকি
চোখ ভরা জল চিকিমিকি
একটু ছোঁবে এই নেশাতে পাখিটাকে ডাকে।

অচিন পাখি শুনল না ডাক
থাক সে উড়ে রাতে মিশে যাক
শুকতারাটার জ্বলা-নেভা একটুখানি থামল,
অনেকদূরে আলোর আভাস
চিলেকোঠায় ফুলের সুবাস
মৃদু হাওয়ায় আঁচলটা তার বুক গড়িয়ে পড়ল।

ঐ বুকেতে মায়া থাকে জানি আমি জানি
কপাল একটু ছুঁয়ে তাতে লাগাই চোখের পানি,
আমার পানি তাহার পানি মিলেমিশে এক
ভাঙা চেয়ার চিলেকোঠা দেখরে সবাই দেখ।

0 comments:

Post a Comment