একলা হাওয়া নির্বাসন যাও

জানালা দিয়ে যতটুকু আকাশ
মেঘগুলো বিষণ্নতায়
উড়ছিলো শুধু।
গাছগুলো বৃষ্টিতে ভিজে
নতুন।
আসন্ন পালতাদের
সম্ভাবনায়
কিছুটা আহ্লাদী।

পাখিগুলো রাস্তায়
জমে থাকে জলে
সারছিলো সমবেত স্নান।

রাস্তায়
চলতে থাকা গাড়িগুলো
বারবার চৌরাস্তার লাল এ
থামছিলো।

আমার জ্বরাক্রান্ত চোখ
কেবলি
ছুটে বেড়াচ্ছিল
পাখী থেকে চৌরাস্তায়
আকাশ থেকে গাছে।

ঝুলানো পর্দার
দিকে তাকিয়ে
এলোমেলো ভাবনায়
মনে পড়ে কতকিছু।

জ্বর এলেই এমন
বেহিসাবী নিমপাতা দিন।

কে জানে পৃথিবীর
অন্যখানে
বুক ভরা বেদনা নিয়ে
নির্ঘুম রাত
কাটে কারো কি?

সেই
বেদনাকে ছুঁতে পারে কে?

শুধু
জানালা দিয়ে তাকালেই
দেখা যায়
একটা ছোট্ট মেঘের পথ
বহুদুর বেয়ে গেছে।

মনটাকে বিমর্ষ করে দিয়ে
সেই পথ ঘুরে আসি।

প্রার্থণার উচ্চারিত হয়
"সুস্হতা চাই।
জ্বরজারি
একলা হওয়া
নির্বাসন যাও।"

আমার জ্বরজারি
অনেকদুরের তাকে ধাবিত
করে
এবং তার হৃদয়ের তাবৎ
কাঁপন
আমার দিকে।
এভাবে পৃথিবীর অনেক
নরনারী
আবালবৃদ্ধবিণিতা সকলে
অজানা ভাইরাস এ আক্রান্ত
হতে থাকি।
প্রতিদিন।

0 comments:

Post a Comment