বৃষ্টি আমার শহর



এ শহরে একদিন অদ্ভুত এক বৃষ্টি হবে।
সেই বৃষ্টি আসবে আকাশ কালো করে।বৃষ্টি নামার পূর্বে ঠান্ডা বাতাসে শিহরিত হবে তুমি।সেই বাতাস তোমাকে চিলেকোঠায় টেনে আনবে। চিলেকোঠায় দাঁড়িয়ে তুমি সেই শিহরণ উপভোগ করবে। সেই বৃষ্টির  জল হবে হিমশীতল।
এই শহরে একদিন অদ্ভুত এক বৃষ্টি হবে।
আমি সেই অদ্ভুত বৃষ্টিতে ভিজবো। আর কেউ ভিজবে না। আর ভিজবে নীড়হারা দু-একটা কাক। সড়কে তখন হাঁটু জল। তার উপর দিয়ে হুস করে ছুটে যাচ্ছে দুই একটা গাড়ি। 
এই শহরে একদিন অদ্ভুত এক বৃষ্টি হবে।
সেই বৃষ্টি সন্ধ্যা নাগাদ চলবে। তুমি আয়েস করে এক কাপ চা নিয়ে এসে বারান্দায় বসেছো। মুগ্ধ হয়ে বৃষ্টির শব্দ শুনে যাচ্ছো। গাছের পাতা থেকে গড়িয়ে পরা বৃষ্টির জলের সৌন্দর্যে তুমি অবাক। বৃষ্টি এত সুন্দর কিভাবে হয় সেটাই তুমি ভেবে পাচ্ছো না। তোমাদের আবার টিনের চাল। টিনের চালে বৃষ্টি শুনতে তোমার অদ্ভুত ভাললাগছে।
এই শহরে একদিন অদ্ভুত এক বৃষ্টি হবে।
আকাশে তখন সন্ধ্যা নামি নামি করছে। আমি অনেকটা পথ হেটে এসেছি। দূর থেকে একটা মেয়েকে বারান্দায় বসা দেখতে পাচ্ছি। সেই মেয়েটি অবাক হয়ে বৃষ্টি দেখছে।তার হাতে এক কাপ চা।
 আমি ধিরে ধিরে মেয়েটির দৃষ্টিসীমায় এসে দাঁড়ালাম।
বারান্দা থেকে তুমি হঠাৎ একটা ছেলেকে খেয়াল করলে। একটা নীল শার্ট পড়া ছেলে। ছেলেটাকে তুমি চেনো। খুব ভাল করেই চেনো। আজ যেনো তোমার অবাক হওয়ার দিন। তুমি ছুটে ছেলেটার কাছে গেলে। তুমি হতবাক হয়ে তার দিকে চেয়ে আছো। ছেলেটা মুচকি হাসছে। বৃষ্টির বেগ বেড়ে গেল তুমি আর ছেলেটি বৃষ্টিতে ভিজছো।
মেয়েটা এখনো আমার সামনে দাঁড়িয়ে।  ভেজা শরীর তার সৌন্দর্য হাজার গুন বাড়িয়ে দিয়েছে। আমি মুচকি হেসেই যাচ্ছি। হঠাৎ এক ঝটকায় তাকে আমি বাহুবন্ধী করলাম। তার ঠোঁটে একে দিলাম আমার প্রতিচ্ছবি। সন্ধ্যা নেমে গেছে। এখনো বৃষ্টি পরছে।
এই শহরে একদিন সাধারণ এক বৃষ্টি হবে।

তুমি আর আমি মিলে সেই বৃষ্টিকে অদ্ভুত বানাবো।

0 comments:

Post a Comment