বুদ্ধং শরনং গচ্ছামি

 ভালোবাসায় ভালোবেসে আর তোমার মেঘের আড়ালে লুকিয়ে থাকা মনখারাপগুলো ভ্যানিশ করে দেবো।
দুখঃছায়া উধাও।

হয়তো এভাবেই বৃষ্টি আসে শহরে, বৃষ্টিতে ভেজে লোক।

 বৃষ্টি পড়ে চোখের ওপর।বন্ধ হোক চোখ। তোকে আমাকে ভিজতে দেখে তারাও ভিজুক। জানলা রোদ চায়, রাঙা হোক প্রার্থনা।

সেই সকাল গড়িয়ে খয়েরী রাত আসে। অন্ধকার ছুতে চায় আমার চিবুক। তোর দিকে তাকিয়ে থাকি আনমনে, চূড়ান্ত স্পর্ধায় ঠোঁটের চুমুতে ভরসা থাকুক।

ছেলেবেলার প্রেমিকারা কেমন আছো? চিলেকোঠারা ভালো নেই তোদের ছাড়া। তোমাদের ছাড়া। তোমরাও কি বড়ো হয়ে গেছ?

এখনো চাবিওয়ালা গুরুদুয়ারার আলোতে রোদের ঝিলিকি। সিঁড়িতে লেগে থাকে অসহায় ভাবে চোখ মুছতে মুছতে বাড়ি চলে যাওয়ার অভিমান!! রাত আসছে ক্রমে অন্ধকারও খুঁজে নেয় নিজের অস্তিত্ব
আমি খুঁজে নিই অস্তিত্বের ছদ্মবেশ।অচেনা হওয়ার প্রশ্নই ওঠে না, এখন আরো হাজার রাত বাকি আদরে কাঁদার জন্যে। রাজনৈতিক ভালোবাসছি তোমাকে।

চুমুতে লেগে থাকে ব্যারিকেডের গন্ধ, ইন্দ্রিয়ে তোর ঘোর। ব্ল্যাক-ম্যাজিক তোকে পাওয়ার উদগ্রীব ; আমিও ডুবে যাই অন্ধকারে।
“বুদ্ধং শরনং গচ্ছামি”

0 comments:

Post a Comment