এক পরজীবী জীবনের গল্প

          à¦¤à§à¦®à¦¿ এলে যাযাবর পাখি হবো             বাঁধমুক্ত ঢেউ... জ্যামিতিক রেখায় পাপী হবো তোমার গোলাপবিলে ডুবসাঁতারে  তুমি এলে বেপরোয়া ভালোবাসায় থমকে দেব রোদের দুপুর পাখিঠোঁটে ছুঁয়ে দেব শীতল ছায়ার প্রজাপতি পালক।  তুমি এলে প্রিয় গানের ভেতর খুঁজে নেব ছেড়ে যাওয়া ট্রেনের বিদগ্ধ আর্তনাদ।

   ১।।

ছন্নছাড়া জীবনে সব হাতঘড়ি খুলে রেখে
যেটুকু লজ্জা বাঁচিয়ে রেখেছি সম্ভ্রমে
সেখান থেকে মুক্ত হতে চাই..

আমি চাই আমার জন্য একটা কবিতা লেখ তুমি I

             ২।।

প্রিয় প্রজাপতি,
তুমি কার কলঙ্ক ছুঁয়ে এমন বাউল
হয়ে ঘুরে বেড়াও ?

প্রিয় রুমাল,
তুমি কার স্পর্শ এমন
করে দু’হাতে আগলে রাখো বুকের পাঁজরে?

প্রিয় প্রেম,
তুমি কার বিষে খুন হয়
সকাল,দুপুর.সন্ধ্যায়,মাঝেমাঝে রাতের শেষভাগে?

আমিও বা কেন
হাতের তালুর আঁকাবাকা রেখায় লুকিয়ে রেখেছি
প্রজাপতি,রুমাল এবং প্রেম প্রিয় হয়ে ওঠার
গল্প ?

             ৩।।

কোনদিন দেখা হয়ে যাবে
যেমন মেলার ভিড়ে চোখে পড়ে যায় চেনা মুখ, সেইভাবে
ভদ্রতার হাসি, অমায়িক
হয়তো বা মুখোমুখি নয়, বেশ দূরে, তবু ঠিক
পাশাপাশি বসা যেন, কিছু কথা বড় আলগোছে
সময় কত কি মোছে
খাড়াই অন্ধকারে নিষ্প্রভ পাহাড়ের দাগ
খুনসুটি, ভালোবাসা, আদর – সোহাগ
নদীতে জোয়ার ছিলো, এখন ভাঙ্গন।

              8।।

যে নদীটি আমাদের ছিল
সেথায় আজ পরিযায়ী পাখিদের মেলা,
সেইসব পাখিদের ঝরা পালকে রেখে এসেছি
এক পরজীবী জীবনের গল্প!

দমকা হাওয়ায় ঘরের বাতিটি নিভে গেলে
যদি কোনদিন,
পালকটি উড়ে আসে তোর ঘুমন্ত বারান্দায়
তুই তাকে ছুঁয়ে দিস ব্যথিত আঙুলে!

ডিজিটাল যুগে,

বইয়ের বুকের ভেতর পালকের স্থান কোথায় বল?

0 comments:

Post a Comment