ফেরা



এমন এমন সব হঠাৎ ঘুম ভাঙ্গা রাতে অমনি করে হঠাৎ হাওয়ার মত সুন্দর কোনো চাঁদনী রাতে, ফুলের গন্ধের মধ্যে, রাতচরা পাখির ডাকের মধ্যে, রূপালী রাতে ঝুমঝুমিয়ে বেজে ওঠা সমস্ত শব্দ তরঙ্গের মধ্যে এখানে একদিন নিজেকে নিবিয়ে দেব সেদিন এবং তারপর একজনও কি জানবে, জানতে চাইবে, কেন হঠাৎ নিবে গেলাম আমি?
আসলে কেউই জানবে না, কেউই কাঁদবে না, কেউই ভাববে না।
এই অখ্যাত তরুনের জন্য রোজ সকালে গোলাপের পাপড়ি থেকে ঝরে পড়া শান্ত শীতল কুয়াশার জন্য কেই বা কোনোদিন কেঁদেছে।
তবুও যেতে হবে, চলে যেতে হবে, আজ কিংবা কাল, নিজের হাতে নিজেকে খেয়া পার করাতে হবে।
তারপরেও এই শহরে পাখি ডাকবে, ফুল ঝরে পড়বে, শুকনো পাতা উড়বে চৈতী হাওয়ায়, মহুয়া আর করৌঞ্জের গন্ধে ভারী হয়ে থাকবে সমস্ত পৃথিবী আর এই দ্বন্দ ও দ্বীধায় ক্লিষ্ট বঞ্ছিত ও ব্যাথিত হৃদয়ের কেউ একজন চিরনিদ্রায় ঘুমিয়ে থাকবে।
ঘুমিয়েই কি থাকবে? না আমাকে সেই কালো ট্রাউজার ও কালো শার্ট পড়া অশরীরী লোকটির মত দেখা যাবে এই জঙ্গলের পথে পথে ঘুরে বেড়াতে?

আমাদের সকলের সামনেই সন্ধ্যে হয় রোজ কিন্তু আমরা কজন সেদিকে চোখ তুলে তাকাই? দিনের শেষ এবং রাতের শুরুর মধ্যে এই যে গোধূলি লগন, এই লগনকে আমরা কজন উপলব্ধি করি। এই পাহাড়ি পরিবেশের সন্ধ্যালগ্নে দাঁড়িয়ে বুক ভরে আসন্ন হিমের রাতের গন্ধ নিতে নিতে পশ্চিম আকাশের শেষ ফিকে গোলাপী আভার দিকে চোখ মেলে আমার বারে বারে মনে হয় যে আমি যেন এখানেই জন্মে ছিলাম কোনো কালে, মনে হয় প্রকৃতিই আমার আসল মা, আমার আসল প্রথম এবং সর্বশেষ প্রেমীকা। হয়তো অনেক নারী এসেছে, চলে গেছে, তারা সকলেই জংলী হলুদ সানফ্লাওয়ারের মত, বেগুনী রঙ্গা প্রজাপতির মত, ঘুঘুর কবোষ্ণ বুকের মত, তারা খন্ড এবং প্রকৃতিই তাদের সমষ্টি।

মাঝে মাঝে খুব ইচ্ছে করে একবারও পিছন না ফিরে প্রতি পদক্ষেপ এই পৃথিবীর সমস্ত করুনা, করুনার ভিক্ষা ও তার প্রতিশ্রুতিকে এক পায়ে লাথি মেরে হারিয়ে যাই আবছা কুয়াশায়...

Show me the way to go home, I am tired and I want to go home...

I had a little drink about an hour ago which has gone right to my head.

Show me the way to go home,

I am tired and I want to go to bed. Show me the way to home...

0 comments:

Post a Comment