গল্পটা আবার শুরু হয়েছে ...



সন্ধ্যায় পড়ার
 টেবিলে বসলে খোলা জানালা দিয়ে উত্তরের
 দিকে অনেক দূরে এক দোতলা বিল্ডিং এর
 আরেকটা খোলা জানালা দেখা যায় ।
 হালকা আকাশী রঙের
পর্দা দিয়ে ঢাকা থাকে সারাদিন । সন্ধ্যার পর
 পর্দাটা অর্ধেক সরে যায় ।
 সেই আকাশী পর্দা দেওয়া জানালার রয়েছে অনেক
 গল্প । গল্পের নায়িকা একটি মেয়ে ।

 মেয়েটা কখনও বিছানায়
 বসে ঝুকে ঝুকে পড়তে বসে , কখনও বা ফোন
 কানে পায়চারী করে । কখনও বা দেখি ছোট্ট
 বোনের সাথে দুস্টুমি করে । রাতে ডিনারের ডাক
 আসলে মেয়েটি নিচতলায় চলে যায় ।
 জানালাটা তখন গল্পশুন্য হয়ে যায় ।

 আমার জানালাটা উত্তরমুখী । নীল
 জোছনা উঠলে আমি রুম টা অন্ধকার করে জানালার
 খুব কাছে এসে দাড়িয়ে থাকি ।

চাঁদ কখনও
 উত্তরে আসে না । কিন্তু চাদের আলো উত্তরের
 আকাশেও পড়ে । আলো পড়ে সেই দূরের জানালাতেও।

অন্ধকারে দাড়িয়ে সেই জানালার গল্প দেখি ।

 ওই জানালাটা আর জানালার মেয়েটা ছিল আমার
 রাত জাগার সঙ্গী । পরীক্ষার তীব্র চাপে ওই
 জানালা টা ছিল পিঞ্জেরের মত । জানালার
 দিকে তাকিয়ে বিষাদময় রাতগুলো পাড়ি দিতাম ।
 শীতের পুরোটা সময় আমার জানালা বন্ধ ছিল ।
 উত্তরের বাতাসে কাপুনি ধরে । উত্তরের ওই
 জানালাটাও বন্ধ ছিল । গল্প বলার ও কেউ ছিল
 না , গল্প শোনার ও কেউ ছিল না ।

 অনেক দিন পর দুপুরবেলা আমার জানালার
 পর্দা সরালাম । জানালা খুলে দিতেই বসন্তের
 বাতাস ঢুকতে শুরু করলো । প্রানচাঞ্চল্যের বাতাস।
 হলুদ বাতাস ।

 উত্তরের জানালার দিকে তাকালাম ,
জানালাটা খোলা । আকাশী পর্দা নামিয়ে নীল
 পর্দা লাগানো হয়েছ । বসন্তের হলুদ
 বাতাসে পর্দা গুলো উড়ছে ।

 মেয়েটা এসে জানালার পাশে দাঁড়ালো ।
 আমি পর্দা টেনে আবার ঘুমুতে চলে এলাম ।
 গল্পটা আবার শুরু হয়েছে , বসন্ত আসছে ...




0 comments:

Post a Comment