আলোকবর্ষ


ভবা পাগলা; ভাঙা একতারাটায় বেখেয়ালি সুর শেষ মাঝ রাতে
তোমার ঘড়ের দেওয়াল ঘড়িতে রাতের নিঃশব্দতা ভেঙে যায় পৌনে দু-টো
সমান্তরাল রেল লাইন শিশির ভেজা
তখনও জেগে ফাঁকা বগি
ঘুময়নি সমান্তরাল ছায়া ।

ফেলে আসা উপড়ে তোলা রেল লাইন
জলের উপড়ে বিভেদ রেখা একলা বাপ মেয়ে
ইচ্ছামতি, ওপারের কলসি ভেজা হাত
ছুঁয়ে যায় এপারের বৃদ্ধ চোখ
কে জানে কতো জল আজও আছে চোখে
মিশে তোর শরীরে ?

একলা বাপের চোখের পলকে ভাঙা একতারা ভবার
কলসির কানা ছুঁয়ে আসা হাতের তরঙ্গ তার সুর
পোড়া বিড়ির জমে থাকা ধোঁয়া
নেমে আসা অন্ধকার
ওপারের অন্ধকার চিরে আসা আলতো আলো
ইচ্ছামতি; ভিজে যাস তুই বয়ে যায় এবেলা
ওবেলায় নিয়ে আসিস ওদের আবার সেই মায়া বন্দী খেলা
এক্কাদোক্কা মধ্যবয়সী বাপ মেয়ের ছেলে বেলা
ভবার ভাঙা একতারা জেগে আছে বগি
" ভাগাভাগি তবে কি "
বাপ-মেয়ে জানে
ওপারে ও এখনও দোলায় শীর্ণ পায় ?
ওপারে কি এখনও ডোবা কলসির কানা ?
ভাবার ছুটে যাওয়া পায়ের উষ্ণতা
তোমার ওখানে জেগে আছে বুঝি ঝিঁঝিঁরা ?

নেমে আসে ঘুম, রাতের জেগে থাকা
সাবধানী স্বপ্ন
ফিরিয়ে আনে ওদের
এপারপার বিভেদ রেখা
মাঝে তুই ইচ্ছামতি অসমাপ্ত একা রেললাইন ভাঙা একতারা ।

0 comments:

Post a Comment