V FOR VENDETTA - ভালোবাসা ও বিপ্লবের ইতিহাস

“Remember, Remember, The Fifth Of November,
The Gunpowder Treason And Plot;
I know Of No Reason, Why the Gunpowder
Treason, Should Ever Be Forgot.”

সিনেমাটা শুরু হয় এই অসাধারন কথাগুলো দিয়ে। শুধু এই সংলাপটুকু নয়,ভি পুরো মুভিতেই অসাধারন সব বানী দিয়ে গেছে,নিয়ে গেছে ৪০০ বছর পুরোনো এক ইতিহাসে।যদিও আজ ৫ নভেম্বর না,, তাও সবাইকে গানপাউডার প্লট দিবসের শুভেচ্ছা।
V_for_Vendetta_by_Rub_a_Duckie

১৬০৫ সালের লন্ডন।অত্যাচার, বর্বরতা দিয়ে ভরা ব্রিটেন খোদ ব্রিটিশ সরকারই। সবাই অতিস্ঠ কিন্ত প্রতিবাদ করার মত কেউ নেই। এ সমময়ে রাজা প্রথম জেমসকে হত্যা ও ব্রিটেনের পার্লামেন্ট হাউস অফ লর্ডস উড়িয়ে দেওয়ার চক্রান্ত করে ক্যাথলিকদের একটি দল। তৎকালীন ব্রিটিশ সমাজে বিদ্যমান বর্বরতার জন্য সরকারকে দায়ী করে তারা এ কাজ করতে চেয়েছিল।এই চক্রান্তের বিস্ফোরক বারুদের মজুত দেখার দায়িত্বে ছিলেন দলের সদস্য গাই ফক্স। ১৬০৫ সালেই পার্লামেন্ট এর কাছে একটি সেলার ভাড়া নেয় ফক্স ও তার দল। বলা হয় সেখানে ‘আলু মজুদ করা হবে। পার্লামেন্টের অধিবেশন বসার কথা ছিল ৫ নভেম্বর।তারা প্লান করতে থাকে, এরইমধ্যে ষড়যন্ত্রকারীদের সংখ্যা বেড়ে গিয়ে দাঁড়ায় ১৩ তে। বেশি লোক হবার কারনে তাদের মধ্যে ঝামেলাসহ অনেক সমস্যা শুরু হয়। অক্টোবরের ২৩ তারিখ হামলার কথা ফাস হয় এমনকি এই কথা পার্লামেন্ট পর্যন্ত চলে যায়। তারা সাবধান হয়ে অনুসন্ধান চালাতে থাকে। ওদিকে ফক্সের দল ভাবে যেহেতু তাদের হামলার কথা ফাঁস হয়েছে প্ল্যান ফাস হয় নি তাই তারা কাজ চালিয়েই যাবে।অনুসন্ধান দল ৪ঠা নভেম্বর রাতে সেলারের নিচে প্রচুর পরিমানে বারুদসহ ফক্সকে আবিস্কার করে। তাকে গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়া হয়, ক্যাথলিকদের আস্তানায় হামলা করা হয় অনেক মানুষ মারা পড়ে। ফক্সের কাছ থেকে ষড়যন্ত্রকারীদের নাম বের করার জন্য অত্যাচার করা হলেও তিনি কারোর নাম বলেননি। ১৬০৬ সালের ৩০ জানুয়ারি তাকে ফাঁসিতে ঝোলানো হয়।

হতভাগ্য মানুষটার প্লান কাজে লাগে নি। কিন্ত কিছু মানুষ তাকে মনে রেখেছে। ১৬০৫ খ্রিষ্টাব্দে পরিকল্পিত গান পাউডার
ষড়যন্ত্রের বিপদ থেকে রাজা প্রথম জেমস ও তার পার্লামেন্ট রক্ষা পাওয়ার ঘটনাকে মনে রেখে ৫ নভেম্বর ব্রিটেনে গাই ফক্স দিবস হিসেবে পালিত হয়। ১৮ শতকে কমিক চিত্রশিল্পী ডেভিড লয়েড জন্ম দেন এই মুখোশের। তারপর এটিকেই গাই ফক্সের মুখোশ হিসাবে ধরা হয় যখন লেখক অ্যালান মুরে তার কমিক ভি ফর ভেনডেট্টা তে নায়ক ভি কে এই মুখোশ পরিয়ে জনপ্রিয় করেন।
Screenshot (10)


২০৩৮ সাল ইংল্যান্ড। চারিদিকে নোংরা শান্তি।কুৎসা,কুরুচিপুর্ন চরিত্রের সরকারি মানুষ লন্ডনে। বিশ্রী স্বৈরাচারী শাসন চলছে। রাত ১১ টার পর সেখানে কারফিউ জারি হয়। চারিদিকে সেই কুরুচিপুর্ন পুলিশ টহল দেয় যাদের বলে ফিঙ্গারম্যান। এমন সময় গাই ফক্সের মুখোশ পড়ে উদয় হয় ভি (V)। এক রাতে ফিঙ্গারম্যানদের হাত থেকে ইভি হ্যামন্ড নামে এক মেয়ে কে বাচায় ভি। অদ্ভদ এক সংলাপে পরিচয় হয় তাদের। ৫ নভেম্বর সরকারি এক চ্যানেল অবরুদ্ধ করে এক বক্তব্য রাখে ভি।যাতে বলা হয় আগামী একবছর পর ঠিক ৫ নভেম্বর সকল জনগনকে পার্লামেন্ট এর সামনে জড়ো হতে। কারন হিসেবে সে বলে আমরা একসাথে এমন এক পাঁচ নভেম্বরের আয়োজন করবো, যেটা কখনও কেউই ভুলে যেতে পারবে না।এতেই চুপ হয় না ভি তখনকার ক্ষমতাসীন দলের সদস্যদের খুন করতে আরম্ভ করে। ভি কে ধরার জন্য পাগল হয়ে যায় ফ্যাসিস্ট সরকার।ভি কে খোজার দায়িত্ব পালন করত থাকে পুলিশ ইনেস্পেক্টার ফিন্চ। এই কাহিনী ধীরে ধীরে খোলসা হতে থাকে, ভি এর পেছনের কাহিনী জানা যায়। মাঝখান থেকে এর মধ্যে জরিয়ে পরে ইভি হ্যামন্ড ও। পাঁচ নভেম্বর কি করবে ভি? সেকি নতুন যুগের গাই ফক্স হিসেবে এসেছে? মুভি শেষ করার মধ্য দিয়ে এর জবাব আপনি পাবেন।।
01

আপনি কি বলতে চাচ্ছেন ভি (V) মানেটা কি? ভি এই সিনোমার সব, প্রত্যেকটা লাইনে এর অস্তিত্ব। ভি একটি ইংরেজি বর্ণ। সারা মুভিতে এর  ব্যাবহার করা হয়েছে, ভি এর সাথে যখন ইভির দেখা হয় তখন ভি প্রায় ৫০ টা V দিয়ে বানানো শব্দ দিয়ে অসাধারন এক সংলাপ বলেন। ভয়ঙ্কর ছিল এটুকু। প্রথমবার যখন দেখি জাস্ট হা করে গিলেছি বাক্যগুলো। অনেক চেস্ট করেছি ঐটুকুর বাংলা অনুবাদের। কিন্ত আমার দ্বারা হয় নি, আমি সঠিকভাবে করতে পারি নি। 🙁 আমার মাঝে মাঝে মনে হয় এই সংলাপটুকু শোনার জন্য একবার হলেও মুভিটা দেখা উচিত।

ভি একটি রোমান বর্ণ যার অর্থ পাঁচ। ভি পাঁচ নভেম্বর বক্তব্য দেয়। পরের পাঁচ নভেম্বর ই সে একটা কিছু করে দেখাতে চায়, সে পাঁচ নম্বর রুম থেকেই এসেছিল বুঝতে পেরেছেন? ভি এর গুরত্ব কতটুকু?

মুভিতে পরিচালক যতটুকু চেয়েছিল,ভি চরিত্রে হুগো ওয়েভিং তার থেকেও উতরে গেছে। আমার মনে হয় খোদ পরিচালক জেমস ম্যাকতেগুই ই অবাক হয়েছেন। অসাধারন এর উপর এ কি আছে জানি না,, ওয়েভিং সেই লেভেল এর অভিনয় করেছেন। একটা মাস্ক পড়ে শান্ত ভাবে যে এভাবে কাজ করা যায় তা এই মুভি না দেখলে বোঝা সম্ভব ছিল না।। চিত্রনাট্য এর গতি ছিল প্রবল আকারে,তাও এর সাথে সুন্দরমত মানিয়ে নিয়েছে ওয়েভিং।আর ছিল তার শক্তিশালী মোহনীয় এক কন্ঠ,আর অসাধারন শব্দের উচ্চারন যা মুভির শেষ পর্যন্ত আপনাকে মাত করে রাখবে। মুভির দুইঘণ্টা দশ মিনিটের ভেতর তার সত্যিকার মুখটি একটিবারও দেখানো হয় নি। কিন্তু ভি চরিত্রে তার অভিনয়,দর্শন একদম নিখুত ছিল এটা আমি স্পস্ট করে বলে দিতে পারি।।

আহ আর নার্টালি পোর্টম্যান।। :* সেইইই কি বলব। একই রকম বাস্তব অদম্য অভিনয়। সরল সাবলীল, ভাবলেশহীন কিন্ত দুর্দান্ত। নার্টালি কোন বাজে কাজ দেখলাম না,আবার অভিনয়ে কোন নতুনত্ব পেলাম না,যেমন ছিল ব্লাক সোয়ান তেমনি লিওন দ্যা প্রফেশনাল তেও।
V-for-Vendetta-Evey-Hammond
ভেনডেট্টা তেও একই রকম,,  যেন বলতে চাচ্ছিল দ্যাখ দ্যাখ আমি নার্টালি পোর্টম্যান যে কোন চরিত্রেই আমি দুর্দান্ত।

আর একজনের কথা বলতেই হবে মিস্টার ক্রিডি চরিত্রে টিম প্রিগট্টি স্মিথ। হয়ত অনেকেই বলবে এত্ত ছোট চরিত্র নিয়ে কেনন বলছি?কারন তারর এমন মানানসই উচ্চারন অসাধারন বাচনভঙ্গি চোখে লেগে থাকার মত। Not So Funny Now,is it,Funnyman?? অথবা Die! Die! Die! Why Wont You Dieee?! Why wont You Die??
এর মত সংলাপে দুর্দান্ত লেগেছে, যেন কথাগুলো তার মুখ নয় চোখ ই বলে দিচ্ছে।।মানতে হবে তিনি একজন গুনী অভিনেতা।

আসলে এই মুভিটি এমন এক মুভি যার পরিচালনার থেকে চিত্রনাট্য খুবই গুরত্বপুর্ন। তবুও পরিচালনার দিক থেকে জেমস ম্যাকতেগুই তার নতুন দলবল নিয়ে বেশ ভাল রকম কাজ করেছেন।সুন্দর উপস্থাপনা, গল্পকে সঠিক সময়ে গতি দেওয়া এদিক থেকে তিনি সফল। ভাল মিউজিক আর এমন ভি ওয়ালা শব্দ দিয়ে গল্প রেডি করা তো চাট্টিখানি কথা না।। আতশ বাজি, ডমিনো চিপসেরর দৃশ্যগুলো মারাত্নক ছিল।
Screenshot (15)
এর আগে তিনি ম্যাট্রিক এর প্রথম পার্ট আর স্টার ওয়ার্স সিরিজের কোন এক মুভি পরিচালনা করেছেন। আমি পরিচালকের কাজ আর টেকনিক্যাল দিক নিয়ে বিশেষ কোন কথা বলতে চাচ্ছি না। কারন এক কথায় সবকিছু দিয়েই সিনেমাটা সেরা হয়েছে।

সিনেমা টা শুধু এক রিভেন্জ অথবা থ্রিলার বলব না। কারন মুভিটি প্রেমের ও। ইভির ঠোট যখন ভি এর রক্তমাখা নকল ঠোটে ঠোট ছোয়ায় তখন যে প্রেমের দৃশ্য উপস্থিত হয় তা অভাবনীয়।
Screenshot (23)
ভি এর কঠোর মুখের রক্তিম হাসি দেখে একলাফ দিয়ে যে কেউ ওয়েভিং এর ফ্যান হয়ে যাবে। আর সেই ভরাট কন্ঠ বাদই দিলাম।গাই ফক্সের মুখোশ যাতে লেগে আছে প্রাচীন রক্তের আগুন,সে আগুন প্রতিবাদের সে আগুন সাম্যের সে আগুন প্রতিরোধেরও। সাদা রং, ছোট ছোট চোখ,একোনা হাসির এ মুখোশ প্রতিবাদের।আসলে এ মুভিটি নিয়ে খুব বলতে পারব আবার বলার পর মনে হবে অনেক কম বল্লাম অনেক কিছু তো বাকি। আসলে এখানে শেষ করে আমি শান্তি পাচ্ছি না। মনেহচ্ছে,,
“শেষ হয়েও হইল না শেষ”


সিনেমাটা খুবই প্রিয়। আমি প্রথম দেখি ২০১৪ সালের প্রথম দিকে। এরপর ২ টা ৫ নভেম্বর গেসে আমি দেখতে বসে গেসি ভি ফর ভেনডেট্টা। যারা দেখেন নি তারা দেখে ফেলুন এ মাস্টারপিস টা। কারন অপেক্ষা করতে পারার কথা না পাঁচ নভেম্বর অনেক দেরি। 🙂 মুভির শেষের দিককার  ক্লাইম্যাক্স এর একটি সংলাপ দিয়ে লেখা শেষ করি।

“You cannot kill an idea, cannot touch it or hold it. Because Ideas are bullet proof”

0 comments:

Post a Comment